Home / BCS Tips / Important Question About Morality Values ​​and Good Governance

Important Question About Morality Values ​​and Good Governance

নৈতিকতা, মূল্যবোধ, সুশাসন বিষয়ে বিগত সালের প্রশ্নের আলোকে একটি গুরুত্ত্বপুর্ন নোট ।এখান থেকে প্রশ্ন কমন পড়বে ইনশাল্লাহ। শেয়ার করে কাছে রাখুন।

 

=====================
১.সুশাসনের মূল চাবিকাঠি
— জবাবদিহিতা
২. মূল্যবোধ হলো ব্যক্তি বা সামাজিক দলের অভিপ্রেত ব্যবহারের সুবিন্যস্ত প্রকাশ ‘‘ উক্তিটি কার ?
— এম.ডব্লিউ পামফ্রে
৩. নৈতিকতা ও ঔচিত্যবোধের বিকাশভূমি
— সমাজ
৪. বিশ্বাসের অন্তর্নিহিত মূল্য
— মূল্যবোধ
৫. সুশাসনের ভিত্তিতে মজবুত করতে মূল্যবোধ কি সংরক্ষণের শিক্ষা দেয়?
-সভ্যতা ,সংস্কৃতি, ঐতিহ্য
৬. নাগরিক কর্তব্য পালনের শিক্ষা দিয়ে সুশাসনকে ত্বরান্বিত করে
— মূল্যবোধ শিক্ষা
৭. পরিবর্তন প্রতিরোধের মানসিকতা প্রকটভাবে দেখা যায়

— আমলাদের মধ্যে
৮. যে মূল্যবোধ মানুষের বাইরের ব্যক্তিত্বকে গড়ে তোলে তাকে কী বলে ?
— বাহ্যিক মূল্যবোধ
৯. কোনটি রাজনৈতিক মূল্যবোধ
— আনুগত্য
১০. বর্তমানে যুব সমাজ ধ্বংসের মূল হাতিয়ার কি?
— অপসংস্কৃতি
১১.অন্য ব্যক্তির কষ্ট যখন আমাদের মনে কষ্টের উদ্রেক করে কতখন সে অনুভুতিকে কি বলা হয়
— সহানুভূতি
১২. ‘অপরাধ একটি সামাজিক ঘটনা এবং সমাজের স্বাভাবিক রূপ ‘ কথাটি কে বলেছেন?
— এমিল ডুর্খেইম
১৩. নৈতিকতা ও সতাতা দ্বরা প্রভাবিত আচরণকে উত্কর্ষতাকে কি বলে?
— শুদ্ধাচার
১৪. আইনের শাসন কি?
— আইনের দৃষ্টিতে সকলেই সমান

১৫. সামাজিক মূল্যবোধর অন্যতম শক্তিশালী ভিত্তি কোনটি ?
– সহনশীলতা
১৬. মূল্যবোধ কোন আচরণেকে নিয়ন্ত্রণ করে ?
– বাহ্যিক
১৭. সুশাসনের পূর্বশর্ত
— জবাবদিহিতা
১৮. সুশাসন নিডিশ্চত করতে যে দরনের সরকার প্রয়োজন
— গণতান্ত্রিক সরকার
১৯. সুশাসন জনপ্রশাসনের একটি
— নব্য সংস্কৃতি
২০. সুশানের লক্ষ্য কোনটি
– জনকল্যাণ সাধন

২১. ‘গভর্নেন্স’ একটি – বহুমাত্রিক ধারণা।
২২. ২০০০ সালে বিশ্বব্যাংক কর্তৃক প্রকাশিত এক সমীক্ষায় বলা হয় সুষ্ঠু গভর্নেন্স বা সুশাসন – ৪টি প্রধান স্তরের উপর নির্ভরশীল।যথা – ক) দায়িত্বশীলতা খ) স্বচ্ছতা গ) আইনি কাঠামো ও ঘ) অংশগ্রহণ।
২৩. ১৯৯৪ সালে বিশ্বব্যাংক প্রদত্ত সংজ্ঞায় বলা হয়েছে – “সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে একটি দেশের সামাজিক এবং অর্থনৈতিক সম্পদের ব্যবস্থাপনার জন্য ক্ষমতা প্রয়োগের পদ্ধতিই হলো গভর্নেন্স।”
২৪. ‘ই-গভর্নেন্স’ শব্দটি এসেছে – ‘ই-গভর্মেন্ট’ বা ‘ইলেক্ট্রনিক গভর্মেন্ট’ থেকে।
২৫. ‘ই-গভর্নেন্স’ কে অনেক সময় – ডিজিটাল গভর্নেন্স, অনলাইন গভর্নেন্স নামেও অভিহিত করা হয়।
২৬. ‘ই-গভর্নেন্স’ কে বাংলায় – ‘ইলেক্ট্রনিক সরকার বা শাসন’ বলা হয়।
২৭. ‘ই-গভর্নেন্স’ বলতে – তথ্যপ্রযুক্তি, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং ইন্টারনেট ও কম্পিউটারভিত্তিক যোগাযোগকে বুঝায়।যা শাসনের এমন এক পদ্ধতি যেখানে সরকারি সেবা ও তথ্যসমূহ জনগণ সহজে ঘরে বসেই পেতে পারে।
২৮. ই-গভর্নেন্স ও সুশাসনের মধ্যে রয়েছে – নিবিড় সম্পর্ক।
২৯. বাংলাদেশে ডিজিটাল পদ্ধতির ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন – শেখ হাসিনার সরকার।
৩০. ‘ইলেক্ট্রনিক গভর্নেন্স’ এর মূল লক্ষ্য – সুশাসন প্রতিষ্ঠা।
৩১. ‘ই-গভর্নেন্স’ চালু হলে – স্বচ্ছতা, দক্ষতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হয়।
৩২. ‘সুশাসন’ শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ – Good Governance
৩৩. ‘সুশাসন’ শব্দটির প্রকাশ ঘটানো হয়েছে – ‘গভর্নেন্স’ প্রপঞ্চটির সাথে ‘সু’ প্রত্যয় যোগ করে।
৩৪. ‘সুশাসন’ একটি – বহুমাত্রিক ধারণা।
৩৫. ‘সুশাসন’ ধারণাটি – বিশ্বব্যাংকের উদ্ভাবিত একটি ধারণা।
৩৬. বিশ্বব্যাংক উদ্ভাবিত সুশাসন ধারণাটিতে মূলত – উন্নয়নশীল দেশের অনুন্নয়ন চিহ্নিত করা হয়।
৩৭. ১৯৮৯ সালে বিশ্বব্যাংকের এক সমীক্ষায় সর্বপ্রথম – ‘সুশাসন’ প্রত্যয়টি ব্যবহার করা হয়।
৩৮. বর্তমান সময়ে প্রায় সব রাষ্ট্রই – কল্যাণকর রাষ্ট্র।
৩৯. আইনের শাসনের মৌলিক শর্ত – ৩টি। যথা- ক) আইনের দৃষ্টিতে সকলে সমান খ) আইনের আশ্রয় গ্রহণের সুযোগ বিদ্যমান থাকা ও গ) শুনানী গ্রহণ ব্যতীত কারো বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করা।
৪০. দূর্নীতি দমনের জন্য প্রয়োজন – স্বাধীন দূর্নীতি দমন কমিশন।
৪১. সুশাসন বাধাগ্রস্থ হয় – আইনের শাসন না থাকলে।
৪২. সুশাসনের একটি সমস্যা হলো – জবাবদিহিতার অভাব।
৪৩. অকারণে হরতাল ডাকা হয় – বাংলাদেশে।
৪৪. প্রায় এক যুগের অধিক সময় ধরে দূর্নীতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েই চলেছে – বাংলাদেশ।
৪৫. যে তিনটি মহাদেশে বারবার সামরিক অভ্যুত্থান হয়েছে – এশিয়া, আফ্রিকা ও ল্যাটিন (দক্ষিণ) আমেরিকা।
৪৪ভিক্ষুককে ভিক্ষা দেয় : নৈতিক মূল্যবোধ।
৪৫সভ্য সমাজের মানদণ্ড: আইনের শাসন।
৪৬কর্মকাণ্ডের ভাল-মন্দের বিচারের ভিত্তি : মূল্যবোধ।
৪৭মূল্যবোধ বিভিন্ন সমাজের : বিভিন্ন রকম।
৪৮মূল্যবোধ হল : পরিবর্তনশীল ও নৈর্ব্যক্তিক।
৪৯মূল্যবোধের ভিত্তি : ১০টি।
৫০মূল্যবোধ সাধারণত : ৯ প্রকার।
৫১আর্থিক লেনদেন, ব্যবসা-বাণিজ্য হল : অর্থনৈতিক মূল্যবোধ।
৫২সামাজিক মূল্যবোধ হল : সুকুমার বৃত্তির সমষ্টি।
৫৩শিশু প্রথম নৈতিক মূল্যবোধের শিক্ষা পায় : পরিবারে।
৫৪অপরের ধর্মমতকে সহ্য করা : ধর্মীয় মূল্যবোধ।
৫৫সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হয় না : আইনের শাসনের অভাবে।
৫৬জাতীয় উন্নতির চাবিকাঠি : গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ।
৫৭গণতন্ত্রের শ্রেষ্ঠতম মূল্যবোধ : সহনশীলতা।
৫৮আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করে : গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ।
৫৯সৎ গুণই জ্ঞান/Knowledge is virtue : বলেছেন এরিস্টটল।
৬০Morality শব্দটি এসেছে : ল্যাটিন Moralitas থেকে।
৬১Truth is beauty and beauty is truth : বলেছেন জন কিটস।
৬২Moralitas এর অর্থ : সঠিক আচরণ/চরিত্র।
৬৩শুভ’র প্রতি অনুরাগ, অশুভ’র প্রতি বিরাগ : নৈতিকতা (ম্যূর)।
৬৪নৈতিকতার রক্ষাকবচ : বিবেকের দংশন।
৬৫নৈতিকতা প্রয়োগ করে না : রাষ্ট্র।
৬৬ব্যক্তিগত ও সামাজিক ব্যাপার : নৈতিকতা।
৬৭আইনের প্রয়োগ হয় না : নৈতিকতা লঙ্ঘনে।
৬৮আইন ও নৈতিকতার মধ্যে প্রথম পার্থক্য করেন : ম্যাকিয়াভেলি।
৬৯নৈতিকতাহীনতা : দণ্ডনীয় অপরাধ নয়।
৭০পৌরনীতির প্রাক্তন অংশ : নীতি বিজ্ঞান।
৭১নৈতিকতার পরিধি : আইনের চেয়ে বড়।
৭২নৈতিকতা হল : অনির্দিষ্ট ও অস্পষ্ট।
৭৩রাষ্ট্র সাধারণত অনুসরণ করে : নৈতিকতাকে।
৭৪সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থার ভিত্তি : সামাজিক স্বার্থ ব্যক্তি স্বার্থের ঊর্ধ্বে।

৭৩নৈতিকতা ও নীতিবোধের বিকাশ ঘটায় : ভাল-মন্দ, ন্যায়-অন্যায়, উচিত-অনুচিত বোধ।
৭৪নৈতিকতা একটি মানসিক বিষয়।
৭৫ধনতান্ত্রিক সমাজে প্রতিষ্ঠা লাভের ভিত্তি : স্বার্থপরতা ও লোভ।
৭৬নৈতিকতা ভিন্ন হতে পারে : দেশ-কাল-পাত্র ভেদে।
৭৭সুনাগরিকের বড় গুণ : আত্মসংযম।
৭৮গ্রহণ ও শ্রদ্ধার শিক্ষাকেই বলে : আত্মসংযম।
৭৯মানবীয় গুণ হল : সহমর্মিতা।
৮০সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনে অগ্রগতির প্রধান ধাপ : শৃঙ্খলা-বোধ।
৮১অধিকার ও কর্তব্য সচেতন নাগরিকই : সুনাগরিক।

৮২‘নীতিভ্রষ্ট বা নীতিহীন শাসক হল অন্যতম পাপী’ বলেছেন : করমচাঁদ গান্ধী।
৮৩মূল্যবোধের ইংরেজি শব্দ হচ্ছে : value।
৮৪মূল্যবোধের শাব্দিক অর্থ : তুলনামূলক আর্যমূল্য, বা দান বা অন্তর্নিহিত গুণাবলি।
৮৫“মূল্যবোধ হল আবেগিক ও আদর্শগত ঐক্যের বোধ” : ফ্রাঙ্কেল।
৮৬মূল্যবোধকে দুটি বিষয়ের নিরিখে বিভক্ত করেছেন : Deniel H. Parker.
৮৭Deniel H. Parker এর বিষয় দুটি হল : বাস্তব জীবনভিত্তিক মূল্যবোধ ও কল্পনাপ্রসূত মূল্যবোধ।
৮৮রাষ্ট্র, সরকার ও গোষ্ঠী কর্তৃক স্বীকৃত মূল্যবোধ : ইতিবাচক মূল্যবোধ।
৮৯রাষ্ট্র, সরকার ও গোষ্ঠী কর্তৃক অস্বীকৃত মূল্যবোধ : নেতিবাচক মূল্যবোধ।
৯০পেশাগত দিক থেকে মূল্যবোধ : ৮ প্রকার।
৯১মানব মনের সুকোমল বৃত্তি প্রকাশের মূল্যবোধ : নান্দনিক মূল্যবোধ।
৯২মানুষের আচার-আচরণকে পরিমাপ ও নিয়ন্ত্রণ করে : মূল্যবোধ।
৯৩অন্যের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়ানো এবং সুখে সুখী ও দুঃখে দুঃখী হওয়া হল : সহমর্মিতা।
৯৪মানুষের কাজের মানদণ্ড : মূল্যবোধ।
৯৫সমাজের ভিত্তি হল : সামাজিক মূল্যবোধ।
৯৬ভাল-মন্দ বিচার করার ক্ষমতাকে বলে : নৈতিকতা।
৯৭আইন ও নৈতিকতার মধ্যে পার্থক্য করা হত না : প্রাচীনকালে।
৯৮আইন ও নৈতিকতার পার্থক্য পরিলক্ষিত হয় : পৃথক সত্ত্বা হিসেবে রাষ্ট্রের প্রকাশের পর।
৯৯মানুষের মনোজগতকে নিয়ন্ত্রণ করে : নৈতিকতা।
১০০বিবেক, চিন্তা, বুদ্ধি ও ন্যায়পরায়ণতা হচ্ছে : নৈতিকতার উৎস।
১০১নৈতিকতা পরিচালিত হয় : সামাজিক বিবেকের দ্বারা।
১০২গণতন্ত্র থেকে উৎসারিত মূল্যবোধ : গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ।
১০৩আইন ও নৈতিকতার লক্ষ্য ও আলোচ্য বিষয় : একই।
১০৪মূল্যবোধ হল : সামাজিক আচার-আচরণের সমষ্টি।
১০৫সামাজিক মূল্যবোধের বৈশিষ্ট্য : আপেক্ষিকতা।
১০৬মূল্যবোধ দৃঢ় হয় : শিক্ষার মাধ্যমে।
১০৭সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত, পরিবেশ দ্বারা প্রভাবিত ও ব্যক্তির দৃষ্টিভঙ্গির উপর ১০৮নির্ভরশীলতা হল : মূল্যবোধের বৈশিষ্ট্য।
১০৯সামাজিক মূল্যবোধ জাগ্রত হয় : পৌরনীতি ও ইতিহাসের শিক্ষা দ্বারা।
১১০মূল্যবোধ : সমাজের বৃহৎ অংশের দ্বারা অনুমোদিত।
১১১মূল্যবোধের একটি প্রকার হল : আদিম মানুষের কাজে-কর্মে।
১১২সততার সাথে দায়িত্ব পালনে ব্রত : মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ।
১১৩আইনের ভিত্তি বলা হয় : মূল্যবোধকে।
১১৪মানুষ ও পশুর মধ্যে পার্থক্যকারী ধারণা : ঔচিত্যবোধ।
�#�সমাজব্যবস্থার� এক মারাত্মক ব্যাধির নাম —
→ দুর্নীতি

�#�চেম্বার্স� ডিকশনারিতে দুর্নীতি বা Corruption এর অর্থ পচা ঘুষ, ভাজাল, কৃত্রিম ও নকল।

�#�এনসাইক্লোপিডিয়া� অনুসারে দর্শন, ধর্মশাস্ত্র অথবা নৈতিকতার আলোকে দুর্নীতি হচ্ছে আধ্যাত্মিক ও নৈতিক অবক্ষয় অথবা অর্থনৈতিক আদর্শ হতে বিচ্যুতি।

�#�নৈতিকতার� আলোকে দুর্নীতি হচ্ছে—
→ ভেজাল

�#�একমাত্র� যে শিক্ষা সকলকে অন্যায় কর্মকাণ্ড থেকে দূরে রাখতে পারে—
→ নৈতিক শিক্ষা

�#�দুর্নীতি� প্রতিরোধে আইন প্রণয়ন করা হয়—
→ ১৯৪৭ সালে

�#�বাংলাদেশে� দুর্নীতি দমন কমিশন প্রতিষ্ঠিত হয়–
→ ২০০৪ সালে
১। গণতন্ত্রের প্রাণ কোনটি?
→ অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন

২। সুশাসন কি ধরনের শাসন ব্যবস্থা?
→ অংশগ্রহণমূলক শাসন ব্যবস্থা

৩। সংসদীয় গণতন্ত্রে একচ্ছত্র ক্ষমতার
অধিকারী কে?
→ প্রধানমন্ত্রী

৪। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার জন্য
প্রয়োজন কোনটি?
→ ধর্মীয় সহিষ্ণুতা

৫। ভিক্ষুককে ভিক্ষা দেয়া কোন মূল্যবোধের
অন্তর্ভুক্ত?
→ নৈতিক মূল্যবোধ

৬। সুশাসনের মূল লক্ষ কোনটি?
→ জবাবদিহিতা

৭। মূল্যবোধের ইংরেজি প্রতিশব্দ কোনটি?
→ Values

৮। কল্যাণমূলক রাষ্ট্র গঠনের অপরিহার্য শর্ত
কোনটি?
→ সুশাসন প্রতিষ্ঠা

৯। বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য
শাসন ব্যবস্থা কোনটি?
→ গণতন্ত্র

১০। সুশাসন ধারনাটির উদ্ভাবক
সংস্থা কোনটা?
→ বিশ্বব্যাংক
১।নৈতিকতার ইংরেজি প্রতিশব্দ=Morality.
২।কোনটি সামাজিক মূল্যবোধের ভিত্তি=আইনের শাসন।
৩।বাংলাদেশে কখন অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পায়=শীতকাল ও বর্ষার সময়।
৪।’Values’ শব্দের প্রতিশব্দ কি=মূল্যবোধ।
৫।’Formulation of performed behaviour held by individual or social group’-উক্তিটি কার=W Pumfrey.
৬।’যে সব মূল্যবোধ ব্যক্তি সমাজের নিকট থেকে আশা করে এবং যা সমাজ ব্যক্তির নিকট থেকে লাভ করে খুশি হয়,সেসব মূল্যবোধই সমাজকর্ম মূল্যবোধ’সংঙ্গা কে দিয়েছেন=স্টুয়ার্ড সিডড।
৭।সমাজকর্মের সূত্রপাত কবে থেকে=মানবসভ্যতার ঊষালগ্ন থেকে।
৮।মূল্যবোধ কোন ধরনের প্রত্যয়=আপেক্ষিক।
৯।’সামাজিক মূল্যবোধ হচ্ছে সেসব প্রকাশ্য ও অনুমেয় আচার আচারণের ধারা যা ব্যক্তি ও সমাজের মৌলিক বৈশিষ্ট্য বলে স্বীকৃত’উক্তিটি কোন ব্যক্তির=Clyde
নৈতিকতা, মূল্যবোধ, সুশাসন

 

 

# বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে ভালো শাসনব্যবস্থা হিসিবে স্বীকৃতি পেয়েছে- গণতন্ত্র
�#�গণতন্ত্র� ছাড়া প্রতিষ্ঠা পায় না- সুশাসন
�#�সুশাসনের� উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য- স্বচ্ছতা
#সুশাসনের পূর্ব শর্ত হল- জবাবদিহিতা
#সুশাসনের মানদণ্ড-জনগণের সম্মতি ও সন্তুষ্টি
�#�সুশাসণের� আভাস পাওয়া যায়- ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে
�#�যেখানে� দেশপ্রেম নেই সেখানে- সুশাসন নেই
�#�সম্পদের� সুষম বন্টন করা যায়- সুশাসনের মাধ্যামে
�#�আইন� নিষ্প্রয়োজন হয়-শাসক যদি ন্যায়পরায়ণ হয়
�#�সুশাসন� একটি চলমান- ক্রিয়াশীল অবস্থা
#সুশাসন প্রতিষ্ঠায় অপরিহার্য বিষয়-গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ
�#�ছায়া� সরকার বলা হয়-সংবাদ মাধ্যমকে
�#�প্রশাসন� যন্ত্রের ধারক ও বাহক-সরকার
�#�মানবাধিকার� লঙ্ঘিত হলে অচল হয়ে পড়ে-গণতন্ত্র
�#�রাষ্ট্রের� সর্বোচ্চ আইন বলা হয়-সাংবিধানিক আইনকে
#সুশাসন প্রতিষ্ঠায় মূখ্য উপাদান-আইনের শাসন
�#�জাতীয়� ঐকমত্য প্রতিষ্ঠায় মুখ্য ভূমিকা পালন করে-সরকার
�#�নৈতিকতা�, ও মূল্যবোদ অর্জনের প্রধান উত্স-পরিবার
#জাতীয় মূল্যবোধ হল-ঐতিহ্য, ইতিহাস,ও দ্বন্দ্বের প্রতিবিম্ব
�#�বড়দের� সম্মান করা, দানশীলতা,শ্রমের মর্যাদা ইত্যাদি -সামাজিক মূল্যবোধ

$পৌরনীতির প্রধান আলোচ্য বিষয় -নাগরিকের অধিকার ও কর্তব্য।
$‘নাগরিকতার সঙ্গে জড়িত সকল প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করে যে শাস্ত্র, তাকে পৌরনীতি বলে’— এ সংজ্ঞাটি দিয়েছেন- ই. এম. হোয়াইট।
$নগররাষ্ট্র বলতে বোঝায় – নগরকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা ছোট রাষ্ট্র।
$পৌরনীতি মানুষকে দান করে-নাগরিক সচেতনতা ।
$‘ইতিহাসের স্রোতধারায় বালুকারাশির মধ্যে স্বর্ণরেণুর মতো রাজনীতিবিজ্ঞান জমা হয়ে উঠেছে।’— এই উক্তিটি-লর্ড অ্যাকটনের।
$‘ইতিহাস রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে গভীরতা দান করেছে’— এ উক্তিটি – উইলোবির।
$‘রিপাবলিক’ গ্রন্থের রচয়িতা – প্লেটো।
$সর্বপ্রথম অর্থনীতিকে একটি স্বতন্ত্র বিষয়ের মর্যাদা দান করেন- অ্যাডাম স্মিথ।
$একজন নাগরিককে দক্ষতা ও জ্ঞানের উচ্চস্থানে পৌঁছে দিতে পারে-নৈতিক গুণ।
$‘শাসক যদি ন্যায়বান হন, তাহলে আইন নিষ্প্রয়োজন আর শাসক যদি দুর্নীতিপরায়ণ হন, তাহলে আইন নিরর্থক’— এ উক্তিটি-প্লেটোর।
$‘সকল ভালো মানুষ ভালো নাগরিক নয়, কিন্তু সকল ভালো নাগরিকই ভালো মানুষ’— এ উক্তিটি অ্যারিস্টটলের।
$‘পলিটিক্যাল ইকোনমি’ গ্রন্থের লেখক-অ্যাডাম স্মিথ।
$‘সকল শাসনব্যবস্থা তার অনুরূপ সম্পত্তি ব্যবস্থার রূপ ধারণ করে, একটি পরিবর্তন হলে অপরটিরও পরিবর্তন হয়’— এই উক্তিটি ম্যাকাইভারের।

১। গণতন্ত্রের প্রাণ কোনটি?
→ অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন

২। সুশাসন কি ধরনের শাসন ব্যবস্থা?
→ অংশগ্রহণমূলক শাসন ব্যবস্থা

৩। সংসদীয় গণতন্ত্রে একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী কে?
→ প্রধানমন্ত্রী

৪। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার জন্য প্রয়োজন কোনটি?
→ ধর্মীয় সহিষ্ণুতা

৫। ভিক্ষুককে ভিক্ষা দেয়া কোন মূল্যবোধের অন্তর্ভুক্ত?
→ নৈতিক মূল্যবোধ

৬। সুশাসনের মূল লক্ষ কোনটি?
→ জবাবদিহিতা

৭। মূল্যবোধের ইংরেজি প্রতিশব্দ কোনটি?
→ Values

৮। কল্যাণমূলক রাষ্ট্র গঠনের অপরিহার্য শর্ত কোনটি?
→ সুশাসন প্রতিষ্ঠা

৯। বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য শাসন ব্যবস্থা কোনটি?
→ গণতন্ত্র

১০। সুশাসন ধারনাটির উদ্ভাবক সংস্থা কোনটা?
→ বিশ্বব্যাংক

১. সুশাসনের চাবিকাঠি বলা হয় নিচের কোনটিকে?
(– সচেতনতাকে

০২.দেশ শাসনের প্রদান উপাদান কয়টি?
— ৩টি
০৩. গণতন্ত্রের মূলমন্ত্র নিচের কোনটি?
(– সাম্য
০৪. বিশ্ব ব্যাংক চিহ্নিত সুশাসনের সূচক কয়টি?
–৬টি
০৫. জনগণের চোখ দিয়ে রাষ্ট্রকে দেখাই হচ্ছে-
— গণতন্ত্রের মূলতš
০৬. পেশাগত দিক থেকে মূল্যবোধ কত প্রকার ?
— ৮ প্রকার
০৭. কোন মহাদেশে বিশ্বব্যাংকের ব্যাপক ব্যর্থতার ফসল হিসেবে উদ্ভব ঘটে সুশাসনের ধারণার ?
(– আফ্রিকা০৮. সাধারণভাবে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সমস্যা কয়টি?
(—২২টি
০৯. সুশাসনের মূল রাজনৈতিক বৈশিষ্ট্য নিচের কোনটি?
— অংশ গ্রহণমূলক পদ্ধতি
১০. দুর্নীতির সাথে সুশাসনের সম্পর্ক কিরূপ ?
— বিপরীতমুখী
১১. নাগরিককে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে সচেতন করে নিচের কোনটি?
– শিক্ষা
১২. স্বৈরাচারের উৎপত্তি ঘটাতে সহায়তা করে নিচের কোনটির অভাব?
– (ঘ) মূল্যবোধ
১৩. জন প্রশাসনের একটি নব্য সংস্কৃতির নাম হলো-
(- সুশাসন
১৪. জাতীয় ঐক্যমত সৃষ্টিতে মূখ্য ভূমিকা পালন করে নিচের কোনটি?
-) সরকার
১৫. গণতন্ত্রের প্রাণ নিচের কোনটি?
– নির্বাচন
১৬. সুশাসন ধারণাটির নিচের কোন প্রতিষ্ঠানের উদ্ভাবিত ?
– বিশ্বব্যাংক
১৭. সুশাসন ধারণার উদ্ভব হয় কত সালে?
-) ১৯৮৯
১৮. আমাদের দেশের আইনের শাসনের মৌলিক শর্ত কয়টি?
-৩টি
১৯. উন্নয়নশীল দেশের রাজনৈতিক দলের বৈশিষ্ট্য নিচের কোনটি?
-) ব্যক্তি পূজা
২০ জনগণ ও সরকারের মধ্যে যোগযোগ সহজ করতে ভূমিকা রাখছে নিচের কোনটি?
-) ই-গভর্ন্যান্স
০১. “রাষ্ট্রের সকল ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য সুশাসন আবশ্যক” এ বক্তব্যটি কার?
উত্তরঃ মিশেল ক্যামভেসাস
০২. ’আইন হচ্ছে নিম্নতমের প্রতি উর্ধ্বতন রাজনৈতিক কর্তৃত্বের আদশর্’ উক্তিটি কার ?
উত্তরঃ জন অস্টিন
০৩. কোনটি ছাড়া সুশাসন সম্ভব নয়?
উত্তরঃ জবাবদিহিতা
০৪. কিসের অভাবে দুর্নীতি জন্ম নেয়?
উত্তরঃসুশাসন
০৫. তথ্য অধিকার আইন প্রথম চালু হয় কোন দেশে ?
উত্তরঃ সুইডেন
০৬. দেশের শাসনতান্ত্রিক আইন উল্লেখ থাকে?
উত্তরঃ সংবিধানে
০৭. বাংলাদেশের গ্রাম সরকার আইন পাস হয় কত সালে ?
উত্তরঃ ২০০৩
০৮. বাংলাদেশে ই-গভার্ন্যান্স বাস্তবায়নের পথে অন্যতম বাধা কী?
উত্তরঃ সমন্বয়হীনতা
০৯. নৈতিক অধিকারের মূল উৎস হলো-
উত্তরঃ ন্যায়বোধ
১০. রাজনৈতিক দল জনগণের উপকার করে কীভাবে?
উত্তরঃ দাবি পূরণের মাধ্যমে

.
০১. একজন নাগরিকের কর্তব্যকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়?
উত্তরঃ তিন ভাগে
০২. মূল্যবোধ কোন ধরনের বিষয়?
উত্তরঃ সামাজিক
০৩. নারীর অধিকার ও নারীর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণ কাজ করে কোনটি?
উত্তরঃ হিউম্যান এন্ড জেন্ডার স্টাডিজ
০৪. ইভটিজিং বলতে বুঝায়-
উত্তরঃ সকল নারীদের উত্ত্যক্ত করা
০৫. মানবাধিকারের বৈশিষ্ট্য নিচের কোনটি?
উত্তরঃ ব্যক্তির একান্ত ব্যক্তিগত
০৬. টেকসই উন্নয়নের জন্য কোনটি কোনটি প্রয়োজন ?
উত্তরঃ প্রতিষ্ঠানিককরণ
০৭. সরকারি চাকরি লাভের অধিকার কোন ধরনের অধিকার?
উত্তরঃ রাজনৈতিক
০৮. সুশাসনের মূল লক্ষ্য কী?
উত্তরঃ জবাবদিহিতা
০৯. রাজনৈতিক দলের মূল লক্ষ্য কী হওয়া বাঞ্ছনীয়?
উত্তরঃ জনকল্যাণ নিশ্চিত করা
১০. ই-সভার্ন্যান্স ও সুশাসনের সম্পর্ক কিরূপ?
উত্তরঃ নিবিড়

নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন↓↓
→→→→→→→→→→→→

০১. “রাষ্ট্রের সকল ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য সুশাসন আবশ্যক” এ বক্তব্যটি কার?
উত্তরঃ মিশেল ক্যামভেসাস.

০২. ’আইন হচ্ছে নিম্নতমের প্রতি উর্ধ্বতন রাজনৈতিক কর্তৃত্বের আদর্শ’ উক্তিটি কার ?
উত্তরঃ জন অস্টিন.

০৩. কোনটি ছাড়া সুশাসন সম্ভব নয়?
উত্তরঃ জবাবদিহিতা.

০৪. কিসের অভাবে দুর্নীতি জন্ম নেয়?
উত্তরঃসুশাসন.

০৫. তথ্য অধিকার আইন প্রথম চালু হয় কোন দেশে ?
উত্তরঃ সুইডেন.

০৬. দেশের শাসনতান্ত্রিক আইন উল্লেখ থাকে?
উত্তরঃ সংবিধানে.

০৭. বাংলাদেশের গ্রাম সরকার আইন পাস হয় কত সালে ?
উত্তরঃ ২০০৩.

০৮. বাংলাদেশে ই-গভার্ন্যান্স বাস্তবায়নের পথে অন্যতম বাধা কী?
উত্তরঃ সমন্বয়হীনতা.

০৯. নৈতিক অধিকারের মূল উৎস হলো-
উত্তরঃ ন্যায়বোধ.

১০. রাজনৈতিক দল জনগণের উপকার করে কীভাবে?
উত্তরঃ দাবি পূরণের মাধ্যমে.
১। সুশাসনের ইংরেজি প্রতিশব্দ ?
= Good Governance
২। সুশাসনের এক পক্ষে সরকার
অন্যপক্ষে ? = জনগন
৩। সরকারের চরিত্র ভালো হওয়ার
জন্য যাদের
চরিত্র ভালো হওয়া দরকার ?
= জনগনের
৪। বাংলাদেশের সংবিধানের
যে অনুচ্ছেদের ধমীয় স্বাধীনতার কথা বলা হয়েছে ?
= ৪১ নং অনুচ্ছেদে
৫। যেখানে দেশপ্রেম নেই সেখানে ?
= সুশাসন নেই
৬। সুশাসন প্রতিষ্ঠার মূখ্য উপদান ?
= আইনের শাসন
৭।
যেভাবে গনতন্ত্রকে শক্তিশালী করা যায় ?
= ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে
৮। ক্ষমতার অপব্যবহারের যৌক্তিক কারন ?
= ক্ষমতার কেন্দ্রীকরন
৯। জাতীয় ঐকমত্য প্রতিষ্ঠার মূখ্য ভূমিকা পালন করে ?
= সরকার
১০। গনতন্ত্র আইনের শাসনে বিশ্বাসী কারন ?
= আইনের চোখে সবাই সমান
১১। Ordinance হলো ?
= জরুরী আইন
১২। আইনের আনুষ্ঠানিক উৎস হলো ?
= সংবিধান
১৩। সমাজে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষাকল্পে যে আইন প্রবতন করা হয় ?
= ফৌজদারি আইন
১৪। যে দেশের আইন বা সংবিধান লিখিত আকারে নেই ?
= যুক্তরাজ্যের
১৫। মুসলিম আইনের প্রধান উৎস হলো ?
= আল কুরআন

…………………
০১. একজন নাগরিকের কর্তব্যকে কয় ভাগে ভাগ করা যায়?
উত্তরঃ তিন ভাগে
০২. মূল্যবোধ কোন ধরনের বিষয়?
উত্তরঃ সামাজিক
০৩. নারীর অধিকার ও নারীর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণ কাজ করে কোনটি?
উত্তরঃ হিউম্যান এন্ড জেন্ডার স্টাডিজ
০৪. ইভটিজিং বলতে বুঝায়-
উত্তরঃ সকল নারীদের উত্ত্যক্ত করা
০৫. মানবাধিকারের বৈশিষ্ট্য নিচের কোনটি?
উত্তরঃ ব্যক্তির একান্ত ব্যক্তিগত
০৬. টেকসই উন্নয়নের জন্য কোনটি কোনটি প্রয়োজন ?
উত্তরঃ প্রতিষ্ঠানিককরণ
০৭. সরকারি চাকরি লাভের অধিকার কোন ধরনের অধিকার?
উত্তরঃ রাজনৈতিক
০৮. সুশাসনের মূল লক্ষ্য কী?
উত্তরঃ জবাবদিহিতা
০৯. রাজনৈতিক দলের মূল লক্ষ্য কী হওয়া বাঞ্ছনীয়?
উত্তরঃ জনকল্যাণ নিশ্চিত করা
১০. ই-সভার্ন্যান্স ও সুশাসনের সম্পর্ক কিরূপ?
উত্তরঃ নিবিড়

১. বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে ভালো শাসনব্যবস্থা হিসিবে স্বীকৃতি পেয়েছে
— গণতন্ত্র
১. গণতন্ত্র ছাড়া প্রতিষ্ঠা পায় না
— সুশাসন
৩. সুশাসনের উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ঠ্য
— স্বচ্ছতা
৪. সুশাসনের পূর্ব শর্ত হল
— জবাবদিহিতা
৫. সুশাসনের মানদণ্ড
— জনগণের সম্মতি ও সন্তুষ্টি
৬.সুশাসণের আভাস পাওয়া যায়
— ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে
৭.যেখানে দেশপ্রেম নেই সেখানে
— সুশাসন নেই
৮. সম্পদের সুষম বন্টন করা যায়
— সুশাসনের মাধ্যামে
৯. আইন নিষ্প্রয়োজন হয় , যদি
–শাসক যদি ন্যায়পরায়ণ হয়
১০.সুশাসন একটি চলমান
— ক্রিয়াশীল অবস্থা
১১.সুশাসন প্রতিষ্ঠায় অপরিহার্য বিষয়
— গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ
১২.ছায়া সরকার বলা হয়
— সংবাদ মাধ্যমকে
১৩.প্রশাসন যন্ত্রের ধারক ও বাহক
– সরকার
১৪.মানবাধিকার লঙ্ঘিত হলে অচল হয়ে পড়ে
– গণতন্ত্র
১৫.রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন বলা হয়
— সাংবিধানিক আইনকে
১৬.সুশাসন প্রতিষ্ঠায় মূখ্য উপাদান
— আইনের শাসন
১৭. জাতীয় ঐকমত্য প্রতিষ্ঠায় মুখ্য ভূমিকা পালন করে
— সরকার
১৮.নৈতিকতা, ও মূল্যবোদ অর্জনের প্রধান উত্স
— পরিবার
১৯. জাতীয় মূল্যবোধ হল
— ঐতিহ্য, ইতিহাস,ও দ্বন্দ্বের প্রতিবিম্ব
২০.বড়দের সম্মান করা, দানশীলতা,শ্রমের মর্যাদা ইত্যাদি
— সামাজিক মূল্যবোধ
=========================
নিজের সুবিধামতো সময়ে পড়তে শেয়ার করে নিজের টাইমলাইনে রাখুন।

—–Zakir’s BCS specials

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *