Home / BCS Tips / Discussion about Bcs Cut Marks

Discussion about Bcs Cut Marks

Discussion about Bcs Cut Marks

৩৭তম বিসিএস প্রিলির সম্ভাব্য কাটমার্কস্‌ বিষয়ক আলোচনা
………………………………………………………………………………….
………………………………………………………………………………….

৩৭তম বিসিএস প্রিলির প্রশ্নটা নিজে সলভ্‌ করলাম। প্রশ্নে উত্তর দাগাতে সময় নিলাম ১ ঘণ্টা ৪ মিনিট।

এই প্রশ্নে,
পারি না=৩৭টা (বেশিরভাগই, সাধারণ জ্ঞানের),
কনফিউজড্‌=৬টাতে,
বাকি থাকল=১৫৭টা।
দাগানোর সময়, মনে আনন্দ ছিল, কোনো নার্ভাসনেস ছিল না, কিছু হারানোর ভয় ছিল না। এছাড়াও, বৃত্ত ভরাট করার ঝামেলাও ছিল না।

একজাম হল কোনো আনন্দের জায়গা নয়। ধরে নিচ্ছি, যদি সত্যিই পরীক্ষাকেন্দ্রে বসতাম গত ৩০ সেপ্টেম্বর, তবে, ‘কনফিউজড্‌’—এমন প্রশ্নের সংখ্যা আরও কিছু বেড়ে যেত। কতটা বেড়ে যেত? ধরে নিচ্ছি, আরও ১০টা বেড়ে যেত। কনফিউশনের সংখ্যা মোট দাঁড়ায়, ৬+১০=১৬তে। যদি এর সবকটা বৃত্তই ভরাট করতাম, আর সেগুলির মধ্যে ১২টা ভুল করতাম, তবে মার্কস্‌ আসত -২। তবে, মোট প্রাপ্ত নম্বর হতো, ১৫৭-১০-২=১৪৫। মানে, এই মুহূর্তেও পরীক্ষা দিলে, আমার অন্তত ১৪৫ নম্বর পাওয়ার কথা।

 

আমার নিজের কথা বাদ! এখন আসি, আসলেই সম্ভাব্য কাটমার্কস্‌ কত হতে পারে? এটা আসলে, এখনো কেউই জানেন না, খোদ পিএসসি’ও না। পরশু থেকে শুরু করে এই লেখাটি লেখার সময় পর্যন্ত অন্তত কয়েকশো ক্যান্ডিডেটের সাথে কথা বলার সুযোগ হয়েছে। শুনলে আপনি খুশি হবেন, তাদের বেশিরভাগেরই অবস্থা শোচনীয়। পরীক্ষা অতোটা ভাল না দিলে, যত বেশি শুনি, অন্যান্যদের পরীক্ষাও আমার মতো (কিংবা, আমার চাইতেও বেশি) খারাপ হয়েছে, আনন্দ তত বেশি বাড়ে। যারা একটু ভাল পরীক্ষা দিয়েছেন, এবং, আমি ধরে নিচ্ছি, উনারা রিটেনের পাসপোর্ট পেয়ে যাবেন, তাদের প্রায় সবারই সম্ভাব্য প্রাপ্ত নম্বর ৮৫-৯৩ এর আশেপাশে।

আসুন, এখন কিছু বিশ্লেষণে যাওয়া যাক।

৩৫তম বিসিএস:
পোস্ট: ১৮০৩টি, জেনারেল – ৪৫৫টি
প্রিলি দেয়ার কথা: ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জনের
প্রিলিতে পাস: ২০ হাজার ৩৯১ জন (পোস্টের তুলনায় ১১.৩ গুণ, জেনারেল ক্যাডারের পোস্টের তুলনায় ৪৪.৮ গুণ)

৩৬তম বিসিএস:
পোস্ট: ২১৮০টি, জেনারেল – ৫৪২টি
প্রিলি দেয়ার কথা: ২ লাখ ১১ হাজার ৩২৬ জনের
প্রিলিতে পাস: ১৩ হাজার ৮৩০ জন (পোস্টের তুলনায় ৬.৩ গুণ, জেনারেল ক্যাডারের পোস্টের তুলনায় ২৫.৫ গুণ)

৩৭তম বিসিএস:
পোস্ট: ১২২৬টি, জেনারেল – ৪৬৫টি
প্রিলি দেয়ার কথা: ২ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৬ জনের

 

আমরা দেখেছি, একজন গড়পড়তা ক্যান্ডিডেট, যিনি ক্যাডার হওয়ার সকল যোগ্যতাই রাখেন, তার কথা বিবেচনায় আনলে, ৩৫ এর প্রশ্ন একটু কঠিন ছিল, ৩৬ এর প্রশ্ন গতানুগতিক ছিল, এবং ৩৭ এর প্রশ্নের স্ট্যান্ডার্ড ৩৫ এর মতোই। সে হিসেবে, পিএসসি যদি সিদ্ধান্ত নেন, ৩৫ এর মতোই ৩৭ এর কর্মসূচি গ্রহণ করবেন, তবে আমরা ধরে নিচ্ছি, রিটেন পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ পাওয়ার কথা প্রায় ১৪ হাজার ক্যান্ডিডেটের (যদি মোট পোস্টের তুলনায় হিসেব করি) কিংবা প্রায় ২১ হাজার ক্যান্ডিডেটের (যদি জেনারেল ক্যাডারের পোস্টের তুলনায় হিসেব করি)। গড়টা ধরে যদি এগোই, তবে সংখ্যাটি হয় মোটামুটি ১৭ হাজার। ওরকম কিছু হলে, ৩৭তম বিসিএস প্রিলিতে কাটমার্কস্ হওয়ার কথা ৮৪-৮৯ এর মধ্যে।

 

এখন কিছু কথা বলে এই লেখাটি শেষ করছি।

এক। পিএসসি এবার মোট কতজনকে রিটেন দেয়ার সুযোগ দেবেন, সেটা তো আমরা কেউই জানি না। তাই, আপনাদের যাদের সম্ভাব্য নম্বর ৮৫ এর আশেপাশে, তারা আজকে থেকেই রিটেনের জন্য নাওয়াখাওয়া ভুলে পড়াশোনা শুরু করুন। বিশ্বাস করুন, রিটেনে ভাল করা না-করা প্রায় পুরোটাই আপনার হাতে।
দুই। জানা জিনিস ভুল শুধু আপনি একাই করেননি, যিনি ৩৭তম বিসিএস পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধাতালিকায় প্রথম হবেন, তিনিও করেছেন। তাই, এটা নিয়ে এত আফসোস করার কিছু নেই। অতীতের জন্য যতই আফসোস করবেন, ভবিষ্যতের জন্য আফসোসের রাস্তা ততই প্রশস্ত হবে।

তিন। বিশাল বিশাল মার্কস পাবেন দাবিকরা বিশাল বিশাল পণ্ডিতদের বেশিরভাগই বিশাল বিশাল ফেল করে আমাদের সবাইকে বিশাল বিশাল বিনোদন দেবেন। রেজাল্টটা বের হতে দিন, আর দেখুন কী হয়! Just wait & see!! আপনার নিজের মুখটা বন্ধ রাখুন।

চার। প্রিলির রেজাল্ট বের হওয়ার পর রিটেনের প্রিপারেশন নেয়ার জন্য বেশি সময় পাবেন না। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি, কেউ যদি রিটেনের জন্য সঠিকভাবে প্রচুর পরিশ্রম করে পড়াশোনা করেন, তবে উনার, মেধাতালিকায় ১ম ১০ জনের মধ্যে থাকার সম্ভাবনা প্রায় ৯৫%। বাকি ৫% ভাগ্যের উপর নির্ভরশীল, যেটার উপর আপনার আমার, কারোরই কোনো হাত নেই। (ভাগ্যে বিশ্বাস করেন না? ঠিক আছে, আপনি অন্তত ১বার প্রস্তুতি নিয়ে বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে দেখুন! আপনার নিজের, কিংবা আপনার আশেপাশের অনেকের জীবন থেকে আপনি নিশ্চিত হয়ে যাবেন, স্রেফ মন্দ ভাগ্যের কারণে অনেক যোগ্য ব্যক্তিই চাকরি পান না।)

৩৭তম বিসিএস রিটেনের পড়াশোনা কীভাবে শুরু করবেন? প্রস্তুতি শুরু করার আগে, আগ্রহীরা বিসিএস লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতিকৌশল নিয়ে আমার ফেসবুক নোটগুলি (বিশেষ করে, ৩৫তম এবং ৩৬তম রিটেনের জন্য লেখা নোটগুলি) দেখে নিতে পারেন। নোটগুলি সবই পাবলিক করা আছে, আমার নোটস্ থেকে খুব সহজেই খুঁজে পড়ে নিতে পারবেন।

আপাতত এইটুকুই! সৃষ্টিকর্তা আমাদের সকলের মঙ্গল করুন।

শুভকামনায়
সুশান্ত পাল
আপনাদের সিনিয়র সহকর্মী Follow me on Fb Sushanta Paul

[X]
Loading...

One comment

  1. ভাই আ‌মি আ‌নেকগু‌লি ভূল উত্তর দি‌য়ে‌ছি, আমার এবার হ‌বে না, ৩৮তম এর জন্য আমা‌কে কিছু সা‌জেশন দি‌লে উপকৃত হব। দয়া ক‌রে সা‌জেশন দি‌বেন। হতাশায় পার হ‌চ্ছে দিন, কারন আ‌মি এখনও আমার ভূলগু‌লো মে‌নে নি‌তে পার‌ছি না। কন‌ফিউজ থাকার জন্য এটা হ‌য়ে‌ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *