Home / New Job / যোগ্য আবেদনকারী না পেয়ে স্নাতক শিক্ষক নিয়োগ : ভিসি

যোগ্য আবেদনকারী না পেয়ে স্নাতক শিক্ষক নিয়োগ : ভিসি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি ছাড়াই শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেছেন, স্নাতকোত্তর ও যোগ্যতাসম্পন্ন আবেদনকারী না পেয়ে শর্ত শিথিল করে তাদের নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছে।
সোমবার উপাচার্যের লাউঞ্জে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টি খোলাসা করেন তিনি।

উপাচার্য বলেন, ‘যারা এসব তথ্য দিয়েছেন, সেখানে সত্যের অপপ্রলাপ হয়েছে। আমি সোর্স শুনতে চাই না, তবে সোর্সের বিশ্বাসযোগ্যতা এ নিউজের মাধ্যমে নষ্ট হয়েছে। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে। তারা সত্য জেনেও নিজেরা মিথ্যাচার করেছেন। এরা দলীয় স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে এমন তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করেছে। এখন চিন্তা করা দরকার, এরা কি দেশের রাসায়নিক ব্যবস্থাকে এগিয়ে নিতে চায় না? বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশকে ধ্বংস করতে চায়?

‘সাধারণত ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে যারা স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন, তাদের স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাগে না। বুয়েট, ডুয়েটসহ কোথাও শিক্ষক হতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি শর্ত না। তারপরও আমরা তিনবার বিজ্ঞপ্তি দিয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি সম্পন্ন কোয়ালিফাইড আবেদনকারী না পেয়ে শর্ত শিথিল করে তাদের নিয়োগের সুপারিশ করেছি। কারণ ভালো ছাত্রদের অনার্স ডিগ্রির পর স্ব-স্ব বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে নেয়। যার কারণে আমাদের ভালো নিতে হলে, অনার্স এর পরপর নিতে হবে। তাই নেওয়া হয়েছে। আর এটি পাকিস্তান, ভারতসহ সাউথ এশিয়ার অনেক দেশেই হয়ে থাকে।’

এর আগে এ বিভাগের চারজন শিক্ষক শিক্ষা ছুটিতে গিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ না দেওয়ায় তাদের পদগুলো শূন্য ঘোষণা করা হয়।

চার শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সিন্ডিকেট সভার মাধ্যমে বিভাগটিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে নয়জনকে। নিয়োগপ্রাপ্তদের মধ্যে তিনজন হচ্ছেন স্নাতক পাশ। যা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে প্রথম ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করেছেন অনেকেই। শুধু স্নাতক পাশ করে কেউ কী করে ঢাবির শিক্ষক হতে পারেন- এই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

গত ৩১ অক্টোবর সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় মোট নয়জনকে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী প্রভাষক পদে আবেদনকারীকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর হতে হবে। কিন্তু নিয়োগপ্রাপ্ত তানভীর আহমেদ, নূরুস সাকিব ও সজীব বড়ুয়ার শিক্ষাগত যোগ্যতা শুধু স্নাতক পাস। তারা তিনজনই বুয়েট থেকে স্নাতক পাশ করে বর্তমানে স্নাতকোত্তরে পড়ছেন। তবে সিন্ডিকেটের সভায় অনেক সদস্য এই নিয়োগের বিরোধিতা করেছেন বলে জানা গেছে।

নিয়োগপ্রাপ্ত নয়জনের মধ্যে এই তিনজন ছাড়া বাকিরা হলেন মো. সিরাজুর রহমান, মো. শাহরুজ্জামান, শান্তা বিশ্বাস, মো. মিনহাজুল ইসলাম, সৈকত চন্দ্র দে ও মো. সাজেদুল ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *