Home / BCS Tips / মুখস্ত নয়, কৌশলেই আয়ত্ত্ব হোক ইংরেজি সাহিত্য (ধারাবাহিক পর্ব)

মুখস্ত নয়, কৌশলেই আয়ত্ত্ব হোক ইংরেজি সাহিত্য (ধারাবাহিক পর্ব)


বিশ্লেষণ ও প্রণয়নেঃ সত্যজিৎ চক্রবর্ত্তী
[ Satyajit Chakraborty ] _____________________________________
আজকের আলোচ্য সাহিত্যকঃJohn Dryden ও O’ Henry এবং তাদের সাহিত্যকর্ম সাহিত্যকর্ম।

 

O’ Henry (real name : Willium Sidney Porter)

আচ্ছা আপনাদের কি এম এল এম কোম্পানি ডেসটিনির কথা মনে আছে? সেখানে কাজ করে গোল্ড এক্সিকিউটিভ হতে পারলে মালেশিয়া যাওয়ার জন্য একটা প্যাকেজ গিফট করত। তো আমাদের কবি O’ Henry একজন ভালো নেটওয়ার্কার ছিলেন। তিনি Destiny থেকে ৬, ৭ বার (sixes & seven times) gift পেয়ে Sidney বেড়াতে গেলেন।

এই কাল্পনিক কাহিনী কোনো বন্ধুকে বলতে পারলে সে বিশ্বাস করুক আর না করুক আপনার কিন্তু এই সাহিত্যিক সম্পর্কে গুরুত্ত্বপুর্ন পরীক্ষায় আসার মত তথ্যগুলো মুখস্থ হয়ে যাবে। আসুন দেখি এই কাহিনী থেকে কী শিখলাম।
:
তিনি কোন কোম্পানি থেকে পুরস্কার পেলেন? ডেসটিনি থেকে। Roads of Destiny তার short story. কয়বার গিফট পেলেন? ৬, ৭ বার (sixes & seven times) gift পেলেন। অর্থা sixes & seven ও The GIFT of magi তার অপর দুটি short story আচ্ছা গিফট পেয়ে কোথায় গেলেন মনে আছে তো? সিডনি গেলেন। আর তখন থেকেই তার নাম হল Willium SIDNEY Porter
:
আসুন এবার গল্প থেকে এই সাহিত্যিক সম্পর্কে কী কী জানলাম দেখেনিই একনজরে।
SHORT STORY:
>> The gift of magi
>> Sixes & sevens
>> Roads of Destiny
His real name is Willium Sidney Porter.
:

সাধারণত বইতে যেসব তথ্য আপনারা পেয়ে থাকেন সেগুলো আমি লিখি না। আপনাদের দুর্বোধ্য বিষয়গুলো সহজভাবে উপস্থাপন করতে গিয়ে প্রিলি ও লিখিত সব বিষয়, এক্সক্লুসিভ টার্ম ও “সহজ ভাষায় ইংরেজি গ্রামার/ মানসিক দক্ষতার সহজ সমাধান/ সাধারন জ্ঞানের অসাধারণ কৌশল/ বাংলার হালচাল/ নিশ্চিত কমন পর্ব ঃ সত্যজিৎ চক্রবর্ত্তী” নাম ও শিরোনামে যেসব লেখা দিয়েছি সব জায়গায় চেষ্টা করেছি বইয়ের প্রথাগত নিয়মের বাইরে গিয়ে একটু কৌশলে বিষয়গুলো আপনার আয়ত্ত্বে আনতে। দীর্ঘদিন ধরে ইংরেজি সাহিত্যের কৌশলের বিষয়ে ব্যক্তিগতভাবে প্রচুর ম্যাসেজ পেয়েছি, তারই প্রেক্ষাপটে আজকের এই লেখা।
:
John Dryden
সাহিত্যিকের নামটি খেয়াল করুন – Dryden। আচ্ছা Dry মানে কী? শুকনো অর্থাৎ শুকিয়ে যাওয়া। যারা বেশি কথা বলে, অন্যের সমালোচনা করে তাদের সবসময় কথা কথা বলতে গলা শুকিয়ে যায়। এই সাহিত্যিক ও সমালোচনা করতেন। কার সমালোচনা করতেন জানেন? ভারতীয় সম্রাটের মনে যে সবার জন্য ভালোবাসা আছে এটা নিয়েই সমালোচনা করতেন। কী করতেন? সমালোচনা ( criticise) করতেন। এজন্যই ওনাকে বলা হয় “Father of English Criticism “।
এত সমালোচনা করতেন যে কথা বলতে বলতে গলাটাই শুকিয়ে যেত। এজন্য নামের সাথেই যুক্ত আছে Dry শব্দটি। দেখলেই চিনে যাবেন তিনিই “Father of English Criticism “।

আচ্ছা তিনি কার সমালোচনা করতেন বললাম? ভারতীয় সম্রাট (Indian Emperor) এর মনে যে সবার জন্য ভালোবাসা (all for love) আছে এটা নিয়েই তিনি সমালোচনা করে লিখলেন ২টি নাটকঃ
>> Indian Emperor
>> all for love
:
কিন্তু জানেনই তো যারা বেশি কথা বলে তারা খুব চিন্তা করতে পারেনা। খালি অন্যের সমালোচনা করে, এটা তাদের অভ্যাস।
:
এই যে বললাম, যারা বেশি কথা বলে তারা খুব চিন্তা করতে পারেনা। এটা আমি সত্যজিৎ এর কাছে থেকে শুনে তিনি লিখে দিলেন বিখ্যাত উক্তিটি “They think too little, who talk to much ” একটু আগে বললাম না, এটা তাদের অভ্যাস, সমালোচকের অভ্যাস। এটা অবশ্য পরে তিনি নিজেই স্বীকার করে বলেছেন – we first make our habits, than habits make us.
:
উপরের কাল্পনিক কথাগুলো শুধু মনে রাখার জন্যই বললাম। আসুন এবার গল্প থেকে এই সাহিত্যিক সম্পর্কে কী কী জানলাম দেখেনিই একনজরে।
:
|| John Dryden:
> Father of English Criticism.

|| Famous play:
>> Indian Emperor
>> all for love

||Quotes:
>> They think too little, who talk to much
>> we first make our habits, than habits make us.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share